ফাতওয়া  নং  ২৪২

ব্যাংক থেকে হোম লোন নিয়ে বাড়ি করা কি বৈধ হবে?

ব্যাংক থেকে হোম লোন নিয়ে বাড়ি করা কি বৈধ হবে?

পিডিএফ ডাউনলোড করুন

ওয়ার্ড ডাউনলোড করুন

ব্যাংক থেকে হোম লোন নিয়ে বাড়ি করা কি বৈধ হবে?

 

প্রশ্ন:-১

ব্যাংক থেকে হোম লোন নিয়ে বাড়ি করা কি বৈধ হবে? বর্তমানে ব্যাংক লোন না দেখালে পৌরসভা থেকে বিল্ডিং করার অনুমতি দেয় না। দুদক ও প্রশাসন দুর্নীতির দোহাই দিয়ে হয়রানি করে।

প্রশ্নকারী-সবুজ হোসাইন

প্রশ্ন:-২

আমি যদি ব্যাংক থেকে হোম লোন নিয়ে বাড়ি করি, যা মুজাহিদদের আশ্রয়সহ জিহাদের বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা যাবে, তাহলে তা কি জায়িজ হবে? এ উদ্দেশ্যে লোন নেয়া কি বৈধ হবে?

প্রশ্নকারী-আব্দুল্লাহ

প্রশ্ন:-৩

বর্তমানে প্রায় সকল মানুষই হোম লোন নিয়ে বাড়ি-ঘর তৈরি করছে। তাছাড়া বিল্ডিং করতে গেলে ব্যাংক লোন না দেখালে পৌরসভা থেকে অনুমতিও পাওয়া যায় না। অনেক আলিমও এখন এই হোম লোনকে জায়িজ বলছেন। প্রশ্ন হল এই হোম লোন নিয়ে বাড়ি করা কি বৈধ হবে?

প্রশ্নকারী-আসাদ আহমাদ

প্রশ্ন:-৪

ইসলামী ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে বাড়ি নির্মাণ করার হুকুম কী?

প্রশ্নকারী-উসামা মাহমুদ

উত্তর:

بسم الله الرحمن الرحيم

الحمد لله، والصلاة والسلام على رسول الله، أما بعد:

সুদ একটি জঘন্যতম হারাম। সুদের ব্যাপারে আল্লাহ রব্বুল আলামীন অত্যন্ত কঠিন ধমক প্রদান করেছেন। এরশাদ করেন,

 فَإِنْ لَمْ تَفْعَلُوا فَأْذَنُوا بِحَرْبٍ مِنَ اللَّهِ وَرَسُولِهِ وَإِنْ تُبْتُمْ فَلَكُمْ رُءُوسُ أَمْوَالِكُمْ لَا تَظْلِمُونَ وَلَا تُظْلَمُونَ * سورة البقرة: 279

“যদি তোমরা (সুদ বর্জন) না কর, তবে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের পক্ষ থেকে যুদ্ধের ঘোষণা শুনে নাও। আর যদি তাওবা কর, তবে তোমাদের মূলধন তোমাদেরই। তোমরা জুলুম করবে না এবং তোমাদের উপরও জুলুম করা হবে না।” -সূরা বাকারা: ২৭৯

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সুদি লেনদেনে জড়িত সকলকে লা’নত করেছেন।  জাবির রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত-

لعن رسول الله -صلى الله عليه وسلم- آكل الربا وموكله وكاتبه وشاهديه وقال هم سواء. -صحيح مسلم، رقم: 4177؛ ط. دار الجيل بيروت + دار الأفاق الجديدة ـ بيروت

“সুদ গ্রহীতা, সুদ দাতা, সুদি লেন-দেনের লেখক ও তার সাক্ষীদ্বয়, সকলের ওপর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম লা’নত করেন এবং বলেন, এরা সবাই সমান।” -সহীহ মুসলিম : ৪১৭৭

অন্য এক হাদীসে এসেছে,

عن ابن مسعود، عن النبي – صلى الله عليه وسلم – قال: “ما أحد أكثر من الربا إلا كان عاقبة أمره إلى قلة”. رواه الامام ابن ماجه: 2289 و صححه الشيخ شعيب الأرنؤوط رحمه الله في تعليقه على ابن ماجه.

“ইবন মাসউদ (রা) থেকে বর্ণিত, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, যে ব্যক্তি সুদ দ্বারা সম্পদ বাড়িয়েছে, পরিণামে তার সম্পদ হ্রাসপ্রাপ্ত হবেই।” -সুনানে ইবন মাজাহ: ২২৮৯

কাজেই বাড়ি করার জন্য কিংবা অন্য কোন প্রয়োজনেই সুদি লোন গ্রহণ করা জায়িজ নয়। বলা বাহুল্য, লোন যদি সুদি হয়, তাহলে এক্ষেত্রে সুদি ব্যাংক ও ইসলামী ব্যাংক উভয়ই বরাবর। আমাদের জানামতে আমাদের দেশে এখন্ পর্যন্ত এমন কোন ইসলামী ব্যাংক গড়ে ওঠেনি, যারা শরীয়াহর সকল বিধিনিষেধ মেনে, শরীয়াহ সম্মত লোন প্রদান করে। নামের ইসলামী ব্যাংকগুলো সুদমুক্ত লোনের কথা বললেও; বাস্তবে সুদমুক্ত হওয়ার জন্য যেসব বিধি-নিষেধ অনুসরণ করা জরুরি, তা তারা করে না। যার ফলে পরিণতিতে তাদের লোনও সুদি লোনে পরিণত হয়।

জিহাদ ও মুজাহিদদের ব্যবহারের জন্য বাড়ি করার উদ্দেশ্যেও সুদি লোন নেয়া জায়িজ নয়। শুধু ভাল নিয়তের কারণে হারাম কাজ হালাল হয় না।

দ্বীন ও শরীয়ত প্রতিষ্ঠার কাজ করতে হলে, সে কাজের পদ্ধতিও শরীয়তসম্মত হতে হবে। অন্যথায় আমাদের অবস্থা হবে তাদের মত, যাদের সম্পর্কে আল্লাহ তা’আলা বলেন-

قُلْ هَلْ نُنَبِّئُكُمْ بِالْأَخْسَرِينَ أَعْمَالًا (103) الَّذِينَ ضَلَّ سَعْيُهُمْ فِي الْحَيَاةِ الدُّنْيَا وَهُمْ يَحْسَبُونَ أَنَّهُمْ يُحْسِنُونَ صُنْعًا (104)} [الكهف]}

“বল, আমি কি তোমাদেরকে এমন লোকদের কথা জানাব, যারা আমালের দিক থেকে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত? দুনিয়ার জীবনে যাদের শ্রম ব্যর্থ হয়ে গেছে, অথচ তারা মনে করছে, তারা ভাল কাজ করছে!” (সূরা কাহাফ (১৮): ১০৩-১০৪)

একান্ত কেউ নিজস্ব টাকায় বাড়ি করতে চাইলে যদি হোম লোন না নিলে অনুমতি না পাওয়া যায়, বা হয়রানির শিকার হতে হয়, তাহলে তিনি নিজের সার্বিক অবস্থা কোন দ্বীনদার মুত্তাকি যোগ্য মুফতির কাছে পেশ করে মাসআলা জেনে নিবেন।

فقط، والله تعالى أعلم بالصواب

আবু মুহাম্মাদ আব্দুল্লাহ আলমাহদি (উফিয়া আনহু)

২৭-০৭-১৪৪৩ হি.

০১-০৩-২০২২ ইং