ফাতওয়া  নং  ২৫৫

জমি বন্ধকের প্রচলিত পদ্ধতি বৈধ হওয়ার কি কোন উপায় আছে?

জমি বন্ধকের প্রচলিত পদ্ধতি বৈধ হওয়ার কি কোন উপায় আছে?

পিডিএফ ডাউনলোড করুন

ওয়ার্ড ডাউনলোড করুন

জমি বন্ধকের প্রচলিত পদ্ধতি বৈধ হওয়ার কি কোন উপায় আছে?

প্রশ্ন:

আমাদের দেশে জমি বন্ধকের যে পদ্ধতি প্রচলিত আছে, তা বৈধ হওয়ার কি কোন উপায় আছে? বিস্তারিত জানালে অনেক উপকৃত হবো।

প্রশ্নকারী- মোহাম্মদ তাহের

উত্তর:

আমাদের দেশে জমি বন্ধকের প্রচলিত পদ্ধতি হল, কারো অর্থের প্রয়োজন হলে তিনি জমি বন্ধক রেখে কারো থেকে ঋণ নেন। যতদিন পর্যন্ত ঋণ পরিশোধ করতে না পারেন, ততদিন ঋণদাতা তার জমি ভোগ করেন। এটা পরিষ্কার সুদ। ঋণের মোকাবেলায় ঋণ গ্রহীতা থেকে কোনো ধরনের উপকার গ্রহণ করাই সুদ।

উক্ত কারবারটিকে সুদমুক্ত করার জন্য কেউ কেউ একটি বাহানা আবিষ্কার করেছেন। তারা নামমাত্র জমির ভাড়া পরিশোধ করে মনে করেন, কারবারটি সুদমুক্ত হয়ে গেছে। যেমন ধরুন, কেউ এক বিঘা জমি বন্ধক দিয়ে পঞ্চাশ হাজার টাকা ঋণ গ্রহণ করলেন। পাঁচ বছর পর ঋণ গ্রহীতা যখন ঋণ পরিশোধ করে জমি ফেরত নেন, তখন ঋণদাতা জমির ভাড়া বাবদ প্রতি বছরের জন্য এক-দুইশ টাকা করে কেটে অবশিষ্ট টাকা ফেরত নেন।

বস্তুত এতেও কারবারটি সুদমুক্ত হয় না। কারণ এখানে বাস্তবে আলাদা কোনো ইজারা চুক্তি হয় না; বরং জমি ভোগ করার শর্তেই ঋণ দেয়া হয় এবং ঋণের সুবিধা পাওয়ার কারণেই জমির মালিক নামমাত্র সামান্য অর্থ ভাড়া হিসেবে গ্রহণ করতে সম্মত হয়।

হ্যাঁ, কারো যদি টাকার প্রয়োজন হয় এবং তার কাছে জমি থাকে, তাহলে উক্ত জমির মাধ্যমে টাকার প্রয়োজন পূরণের বৈধ ব্যবস্থা শরিয়তে আছে। তার জন্য ঋণ বা বন্ধকি চুক্তি করা যাবে না। বরং শুরু থেকে জমি ভাড়া দেয়ার চুক্তি করতে হবে। মনে করুন, একজনের নিকট এক বিঘা জমি আছে। তার পঞ্চাশ হাজার টাকা প্রয়োজন। উক্ত জমিটির বার্ষিক ন্যায্য ভাড়া হচ্ছে দশ হাজার টাকা। তাহলে সে পাঁচ বছরের জন্য ভাড়া দিয়ে ভাড়া বাবদ পঞ্চাশ হাজার টাকা গ্রহণ করতে পারে। এক্ষেত্রে জমির চুক্তিকৃত ভাড়া যদি ন্যায্য ভাড়া থেকে সামান্য কম-বেশি হয়, তাতেও অসুবিধা নেই। তারপর মেয়াদ শেষে জমির মালিককে জমি ফেরত দিতে হবে, অর্থদাতা কোনো অর্থ ফেরত পাবেন না। তবে মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই যদি তারা উভয়ে ইজারা চুক্তি ভঙ্গ করতে সম্মত হন কিংবা অন্য কোনো শরঈ কারণে ইজারা চুক্তি শেষ করতে হয়, সে ক্ষেত্রে ভাড়াটিয়াকে; চুক্তির অবশিষ্ট মেয়াদের ভাড়া ফেরত দিতে হবে। যেমন উপরোক্ত উদাহরণে তিন বছর পর চুক্তি ভঙ্গ হলে বাকি দুই বছরের বিশ হাজার টাকা ফেরত দিতে হবে। -মুসান্নাফ আব্দুর রাযযাক: ১৫০৬৮, ১৫০৬৯; মুসান্নাফ ইবনে আবি শাইবা: ২১০৭৭; বাদায়েউস সানায়ে: ৬/১৪৬; রদ্দুল মুহতার: ৬/৪৮২;  আলফুলকুল মাশহুন ফি মা ইয়াতাআল্লাকু বিনতিফায়িল মুরতাহিনি বিলমারহুন, আব্দুল হাই লখনবি: ৩৬-৩৭; ইলাউস সুনান: ১৮/৬4; ইমদাদুল আহকাম: ৬/৯৫

فقط، والله تعالى أعلم بالصواب

আবু মুহাম্মাদ আব্দুল্লাহ আলমাহদি (উফিয়া আনহু)

০৫-১০-১৪৪৩ হি.

০৭-০৫-২০২২ ঈ.

কিতাব ও রিসালাহ

  • আন্তঃধর্মীয় সংলাপ সম্প্রীতির নামে ইসলাম ধ্বংসের ষড়যন্ত্রআন্তঃধর্মীয় সংলাপ সম্প্রীতির নামে ইসলাম ধ্বংসের ষড়যন্ত্র

    আপনার প্রশ্ন পাঠিয়ে দিন আমাদের নিকট

    প্রশ্ন করার আগে পড়ুন!
    ০১. প্রিয় পাঠক! অল্প সময়ের মধ্যে fatwaa.org সাইটের প্রতি আপনাদের আস্থা ও ভালোবাসার যে পরিচয় আমরা পেয়েছি তার জন্য আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার শোকর আদায়ের পাশাপাশি আপনাদেরকেও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করছি। একই সঙ্গে অত্যন্ত দুঃখ ও বিনয়ের সহিত স্বীকার করছি, আপনাদের প্রশ্নগুলোর উত্তর আমরা যথাসময় দিতে পারছি না। আশা করি বিষয়টি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

    ০২. দুঃখজনক বাস্তবতা হল, আমাদের সামর্থ্য সীমিত। এমন অনেক প্রতিবন্ধকতার মোকাবেলা আমাদের করতে হয়, যা হয়তো আর দশটি দারুল ইফতার ক্ষেত্রে অনুপস্থিত। ফলে ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দেয়া এই মুহূর্তে আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। সীমাবদ্ধতাগুলো ধীরে ধীরে কাটিয়ে উঠার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সকলের কাছে দোয়া চাই, আল্লাহ তাআলা যেন আমাদেরকে সেই তাওফীক দান করেন।

    ০৩. আপাতত আমরা সময়ের প্রয়োজনকে সামনে রেখে, অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে প্রশ্নের উত্তর দিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ। তাওহীদ ও শিরক, তাগুত ও মানবরচিত আইন, খেলাফত আলা মিনহাজিন নবুওয়াহ’র মাধ্যমে; আল্লাহর যমিনে আল্লাহর আইন ও বিধান প্রতিষ্ঠা, কিতাল ও জিহাদ ফি সাবিলিল্লাহ এবং এতদসংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর প্রদানকেই আমরা আপাতত অগ্রাধিকার দিব ইনশাআল্লাহ, যেগুলোর উত্তর সাধারণত অন্য দারুল ইফতাগুলো থেকে সহজে পাওয়া যায় না।

    ০৪. প্রশ্নকারী ভাইদের প্রতি বিনীত অনুরোধ, আপনারা এ ধরনের প্রশ্নগুলোই আমাদের কাছে পেশ করুন। এর বাইরে যে প্রশ্নগুলোর উত্তর নিকটবর্তী নির্ভরযোগ্য যে কোনো মুফতি সাহেব থেকে কিংবা দারুল ইফতা থেকে জেনে নেয়া সম্ভব, ওগুলো সেখান থেকেই জেনে নিন।

    ০৫. ইতিমধ্যে তালাকের প্রচুর প্রশ্ন আমাদের কাছে এসেছে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে বাস্তব ঘটনার তাহকীক ছাড়া তালাকের নির্ভুল ফাতওয়া দেয়া সম্ভব নয়। তাছাড়া পরিবেশ পরিস্থিতি ও শব্দের সামান্য ব্যবধানে তালাকের বিধানে অনেক বড় ব্যবধান হয়ে যায়। এবিষয়গুলোর যথাযথ তাহকীকও অনলাইনে সম্ভব নয়। এজন্য তালাক সংক্রান্ত কোনও ধরনের প্রশ্নই না পাঠানোর অনুরোধ রইল।

    ০৬. আশা করি, আমাদের সকল পাঠকই নিয়মিত ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করেন এবং সবগুলো ফাতওয়াই পড়েন। বিশেষ করে আপনার প্রশ্নের উত্তরের জন্য প্রশ্ন করার ১০দিন পর থেকে ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করুন।

    ০৭. কিছু প্রশ্ন থাকে, যেগুলোর উত্তর ব্যাপকভাবে সকল পাঠকের জন্য সাইটে প্রকাশ করা সঙ্গত নয়; অথচ প্রশ্নকারীর জন্য উত্তরটি জানা জরুরি। এজাতীয় উত্তরগুলো আমরা প্রশ্নকারীকে মেইল করার চেষ্টা করি। সুতরাং আপনার প্রশ্নটি যদি এই প্রকৃতির হয় এবং আপনি মেইল আইডি না দেন, সে ক্ষেত্রেও আপনার উত্তরটি আমরা আপনাকে পৌঁছাতে পারব না।

    ০৮. আপনি যদি প্রশ্ন করার তিন মাসের মধ্যে উত্তর না পান, তাহলে ধরে নিবেন, আপনার প্রশ্নটি অগ্রাধিকারের তালিকায় স্থান পায়নি। সেটার উত্তর আমরা কখনো সুযোগ হলে দিতেও পারি, নাও দিতে পারি।


    • জিহাদ কখন ফরজে আইন হয়?জিহাদ কখন ফরজে আইন হয়?

      আপনার প্রশ্ন পাঠিয়ে দিন আমাদের নিকট

      প্রশ্ন করার আগে পড়ুন!
      ০১. প্রিয় পাঠক! অল্প সময়ের মধ্যে fatwaa.org সাইটের প্রতি আপনাদের আস্থা ও ভালোবাসার যে পরিচয় আমরা পেয়েছি তার জন্য আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার শোকর আদায়ের পাশাপাশি আপনাদেরকেও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করছি। একই সঙ্গে অত্যন্ত দুঃখ ও বিনয়ের সহিত স্বীকার করছি, আপনাদের প্রশ্নগুলোর উত্তর আমরা যথাসময় দিতে পারছি না। আশা করি বিষয়টি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

      ০২. দুঃখজনক বাস্তবতা হল, আমাদের সামর্থ্য সীমিত। এমন অনেক প্রতিবন্ধকতার মোকাবেলা আমাদের করতে হয়, যা হয়তো আর দশটি দারুল ইফতার ক্ষেত্রে অনুপস্থিত। ফলে ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দেয়া এই মুহূর্তে আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। সীমাবদ্ধতাগুলো ধীরে ধীরে কাটিয়ে উঠার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সকলের কাছে দোয়া চাই, আল্লাহ তাআলা যেন আমাদেরকে সেই তাওফীক দান করেন।

      ০৩. আপাতত আমরা সময়ের প্রয়োজনকে সামনে রেখে, অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে প্রশ্নের উত্তর দিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ। তাওহীদ ও শিরক, তাগুত ও মানবরচিত আইন, খেলাফত আলা মিনহাজিন নবুওয়াহ’র মাধ্যমে; আল্লাহর যমিনে আল্লাহর আইন ও বিধান প্রতিষ্ঠা, কিতাল ও জিহাদ ফি সাবিলিল্লাহ এবং এতদসংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর প্রদানকেই আমরা আপাতত অগ্রাধিকার দিব ইনশাআল্লাহ, যেগুলোর উত্তর সাধারণত অন্য দারুল ইফতাগুলো থেকে সহজে পাওয়া যায় না।

      ০৪. প্রশ্নকারী ভাইদের প্রতি বিনীত অনুরোধ, আপনারা এ ধরনের প্রশ্নগুলোই আমাদের কাছে পেশ করুন। এর বাইরে যে প্রশ্নগুলোর উত্তর নিকটবর্তী নির্ভরযোগ্য যে কোনো মুফতি সাহেব থেকে কিংবা দারুল ইফতা থেকে জেনে নেয়া সম্ভব, ওগুলো সেখান থেকেই জেনে নিন।

      ০৫. ইতিমধ্যে তালাকের প্রচুর প্রশ্ন আমাদের কাছে এসেছে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে বাস্তব ঘটনার তাহকীক ছাড়া তালাকের নির্ভুল ফাতওয়া দেয়া সম্ভব নয়। তাছাড়া পরিবেশ পরিস্থিতি ও শব্দের সামান্য ব্যবধানে তালাকের বিধানে অনেক বড় ব্যবধান হয়ে যায়। এবিষয়গুলোর যথাযথ তাহকীকও অনলাইনে সম্ভব নয়। এজন্য তালাক সংক্রান্ত কোনও ধরনের প্রশ্নই না পাঠানোর অনুরোধ রইল।

      ০৬. আশা করি, আমাদের সকল পাঠকই নিয়মিত ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করেন এবং সবগুলো ফাতওয়াই পড়েন। বিশেষ করে আপনার প্রশ্নের উত্তরের জন্য প্রশ্ন করার ১০দিন পর থেকে ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করুন।

      ০৭. কিছু প্রশ্ন থাকে, যেগুলোর উত্তর ব্যাপকভাবে সকল পাঠকের জন্য সাইটে প্রকাশ করা সঙ্গত নয়; অথচ প্রশ্নকারীর জন্য উত্তরটি জানা জরুরি। এজাতীয় উত্তরগুলো আমরা প্রশ্নকারীকে মেইল করার চেষ্টা করি। সুতরাং আপনার প্রশ্নটি যদি এই প্রকৃতির হয় এবং আপনি মেইল আইডি না দেন, সে ক্ষেত্রেও আপনার উত্তরটি আমরা আপনাকে পৌঁছাতে পারব না।

      ০৮. আপনি যদি প্রশ্ন করার তিন মাসের মধ্যে উত্তর না পান, তাহলে ধরে নিবেন, আপনার প্রশ্নটি অগ্রাধিকারের তালিকায় স্থান পায়নি। সেটার উত্তর আমরা কখনো সুযোগ হলে দিতেও পারি, নাও দিতে পারি।


      • তাকফিরের ব্যাপারে সীমালংঘন : কারণ ও প্রতিকার fatwaaতাকফিরের ব্যাপারে সীমালংঘন : কারণ ও প্রতিকার

        আপনার প্রশ্ন পাঠিয়ে দিন আমাদের নিকট

        প্রশ্ন করার আগে পড়ুন!
        ০১. প্রিয় পাঠক! অল্প সময়ের মধ্যে fatwaa.org সাইটের প্রতি আপনাদের আস্থা ও ভালোবাসার যে পরিচয় আমরা পেয়েছি তার জন্য আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার শোকর আদায়ের পাশাপাশি আপনাদেরকেও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করছি। একই সঙ্গে অত্যন্ত দুঃখ ও বিনয়ের সহিত স্বীকার করছি, আপনাদের প্রশ্নগুলোর উত্তর আমরা যথাসময় দিতে পারছি না। আশা করি বিষয়টি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

        ০২. দুঃখজনক বাস্তবতা হল, আমাদের সামর্থ্য সীমিত। এমন অনেক প্রতিবন্ধকতার মোকাবেলা আমাদের করতে হয়, যা হয়তো আর দশটি দারুল ইফতার ক্ষেত্রে অনুপস্থিত। ফলে ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দেয়া এই মুহূর্তে আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। সীমাবদ্ধতাগুলো ধীরে ধীরে কাটিয়ে উঠার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সকলের কাছে দোয়া চাই, আল্লাহ তাআলা যেন আমাদেরকে সেই তাওফীক দান করেন।

        ০৩. আপাতত আমরা সময়ের প্রয়োজনকে সামনে রেখে, অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে প্রশ্নের উত্তর দিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ। তাওহীদ ও শিরক, তাগুত ও মানবরচিত আইন, খেলাফত আলা মিনহাজিন নবুওয়াহ’র মাধ্যমে; আল্লাহর যমিনে আল্লাহর আইন ও বিধান প্রতিষ্ঠা, কিতাল ও জিহাদ ফি সাবিলিল্লাহ এবং এতদসংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর প্রদানকেই আমরা আপাতত অগ্রাধিকার দিব ইনশাআল্লাহ, যেগুলোর উত্তর সাধারণত অন্য দারুল ইফতাগুলো থেকে সহজে পাওয়া যায় না।

        ০৪. প্রশ্নকারী ভাইদের প্রতি বিনীত অনুরোধ, আপনারা এ ধরনের প্রশ্নগুলোই আমাদের কাছে পেশ করুন। এর বাইরে যে প্রশ্নগুলোর উত্তর নিকটবর্তী নির্ভরযোগ্য যে কোনো মুফতি সাহেব থেকে কিংবা দারুল ইফতা থেকে জেনে নেয়া সম্ভব, ওগুলো সেখান থেকেই জেনে নিন।

        ০৫. ইতিমধ্যে তালাকের প্রচুর প্রশ্ন আমাদের কাছে এসেছে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে বাস্তব ঘটনার তাহকীক ছাড়া তালাকের নির্ভুল ফাতওয়া দেয়া সম্ভব নয়। তাছাড়া পরিবেশ পরিস্থিতি ও শব্দের সামান্য ব্যবধানে তালাকের বিধানে অনেক বড় ব্যবধান হয়ে যায়। এবিষয়গুলোর যথাযথ তাহকীকও অনলাইনে সম্ভব নয়। এজন্য তালাক সংক্রান্ত কোনও ধরনের প্রশ্নই না পাঠানোর অনুরোধ রইল।

        ০৬. আশা করি, আমাদের সকল পাঠকই নিয়মিত ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করেন এবং সবগুলো ফাতওয়াই পড়েন। বিশেষ করে আপনার প্রশ্নের উত্তরের জন্য প্রশ্ন করার ১০দিন পর থেকে ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করুন।

        ০৭. কিছু প্রশ্ন থাকে, যেগুলোর উত্তর ব্যাপকভাবে সকল পাঠকের জন্য সাইটে প্রকাশ করা সঙ্গত নয়; অথচ প্রশ্নকারীর জন্য উত্তরটি জানা জরুরি। এজাতীয় উত্তরগুলো আমরা প্রশ্নকারীকে মেইল করার চেষ্টা করি। সুতরাং আপনার প্রশ্নটি যদি এই প্রকৃতির হয় এবং আপনি মেইল আইডি না দেন, সে ক্ষেত্রেও আপনার উত্তরটি আমরা আপনাকে পৌঁছাতে পারব না।

        ০৮. আপনি যদি প্রশ্ন করার তিন মাসের মধ্যে উত্তর না পান, তাহলে ধরে নিবেন, আপনার প্রশ্নটি অগ্রাধিকারের তালিকায় স্থান পায়নি। সেটার উত্তর আমরা কখনো সুযোগ হলে দিতেও পারি, নাও দিতে পারি।


        • ইমাম মাহদির আগমন : সংশয় ও বাস্তবতাইমাম মাহদির আগমন : সংশয় ও বাস্তবতা

          আপনার প্রশ্ন পাঠিয়ে দিন আমাদের নিকট

          প্রশ্ন করার আগে পড়ুন!
          ০১. প্রিয় পাঠক! অল্প সময়ের মধ্যে fatwaa.org সাইটের প্রতি আপনাদের আস্থা ও ভালোবাসার যে পরিচয় আমরা পেয়েছি তার জন্য আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার শোকর আদায়ের পাশাপাশি আপনাদেরকেও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করছি। একই সঙ্গে অত্যন্ত দুঃখ ও বিনয়ের সহিত স্বীকার করছি, আপনাদের প্রশ্নগুলোর উত্তর আমরা যথাসময় দিতে পারছি না। আশা করি বিষয়টি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

          ০২. দুঃখজনক বাস্তবতা হল, আমাদের সামর্থ্য সীমিত। এমন অনেক প্রতিবন্ধকতার মোকাবেলা আমাদের করতে হয়, যা হয়তো আর দশটি দারুল ইফতার ক্ষেত্রে অনুপস্থিত। ফলে ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দেয়া এই মুহূর্তে আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। সীমাবদ্ধতাগুলো ধীরে ধীরে কাটিয়ে উঠার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সকলের কাছে দোয়া চাই, আল্লাহ তাআলা যেন আমাদেরকে সেই তাওফীক দান করেন।

          ০৩. আপাতত আমরা সময়ের প্রয়োজনকে সামনে রেখে, অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে প্রশ্নের উত্তর দিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ। তাওহীদ ও শিরক, তাগুত ও মানবরচিত আইন, খেলাফত আলা মিনহাজিন নবুওয়াহ’র মাধ্যমে; আল্লাহর যমিনে আল্লাহর আইন ও বিধান প্রতিষ্ঠা, কিতাল ও জিহাদ ফি সাবিলিল্লাহ এবং এতদসংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর প্রদানকেই আমরা আপাতত অগ্রাধিকার দিব ইনশাআল্লাহ, যেগুলোর উত্তর সাধারণত অন্য দারুল ইফতাগুলো থেকে সহজে পাওয়া যায় না।

          ০৪. প্রশ্নকারী ভাইদের প্রতি বিনীত অনুরোধ, আপনারা এ ধরনের প্রশ্নগুলোই আমাদের কাছে পেশ করুন। এর বাইরে যে প্রশ্নগুলোর উত্তর নিকটবর্তী নির্ভরযোগ্য যে কোনো মুফতি সাহেব থেকে কিংবা দারুল ইফতা থেকে জেনে নেয়া সম্ভব, ওগুলো সেখান থেকেই জেনে নিন।

          ০৫. ইতিমধ্যে তালাকের প্রচুর প্রশ্ন আমাদের কাছে এসেছে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে বাস্তব ঘটনার তাহকীক ছাড়া তালাকের নির্ভুল ফাতওয়া দেয়া সম্ভব নয়। তাছাড়া পরিবেশ পরিস্থিতি ও শব্দের সামান্য ব্যবধানে তালাকের বিধানে অনেক বড় ব্যবধান হয়ে যায়। এবিষয়গুলোর যথাযথ তাহকীকও অনলাইনে সম্ভব নয়। এজন্য তালাক সংক্রান্ত কোনও ধরনের প্রশ্নই না পাঠানোর অনুরোধ রইল।

          ০৬. আশা করি, আমাদের সকল পাঠকই নিয়মিত ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করেন এবং সবগুলো ফাতওয়াই পড়েন। বিশেষ করে আপনার প্রশ্নের উত্তরের জন্য প্রশ্ন করার ১০দিন পর থেকে ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করুন।

          ০৭. কিছু প্রশ্ন থাকে, যেগুলোর উত্তর ব্যাপকভাবে সকল পাঠকের জন্য সাইটে প্রকাশ করা সঙ্গত নয়; অথচ প্রশ্নকারীর জন্য উত্তরটি জানা জরুরি। এজাতীয় উত্তরগুলো আমরা প্রশ্নকারীকে মেইল করার চেষ্টা করি। সুতরাং আপনার প্রশ্নটি যদি এই প্রকৃতির হয় এবং আপনি মেইল আইডি না দেন, সে ক্ষেত্রেও আপনার উত্তরটি আমরা আপনাকে পৌঁছাতে পারব না।

          ০৮. আপনি যদি প্রশ্ন করার তিন মাসের মধ্যে উত্তর না পান, তাহলে ধরে নিবেন, আপনার প্রশ্নটি অগ্রাধিকারের তালিকায় স্থান পায়নি। সেটার উত্তর আমরা কখনো সুযোগ হলে দিতেও পারি, নাও দিতে পারি।


          • ফাতওয়াপ্রার্থীর আদব-নির্দেশিকাফাতওয়াপ্রার্থীর আদব-নির্দেশিকা

            আপনার প্রশ্ন পাঠিয়ে দিন আমাদের নিকট

            প্রশ্ন করার আগে পড়ুন!
            ০১. প্রিয় পাঠক! অল্প সময়ের মধ্যে fatwaa.org সাইটের প্রতি আপনাদের আস্থা ও ভালোবাসার যে পরিচয় আমরা পেয়েছি তার জন্য আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার শোকর আদায়ের পাশাপাশি আপনাদেরকেও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করছি। একই সঙ্গে অত্যন্ত দুঃখ ও বিনয়ের সহিত স্বীকার করছি, আপনাদের প্রশ্নগুলোর উত্তর আমরা যথাসময় দিতে পারছি না। আশা করি বিষয়টি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

            ০২. দুঃখজনক বাস্তবতা হল, আমাদের সামর্থ্য সীমিত। এমন অনেক প্রতিবন্ধকতার মোকাবেলা আমাদের করতে হয়, যা হয়তো আর দশটি দারুল ইফতার ক্ষেত্রে অনুপস্থিত। ফলে ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দেয়া এই মুহূর্তে আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। সীমাবদ্ধতাগুলো ধীরে ধীরে কাটিয়ে উঠার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সকলের কাছে দোয়া চাই, আল্লাহ তাআলা যেন আমাদেরকে সেই তাওফীক দান করেন।

            ০৩. আপাতত আমরা সময়ের প্রয়োজনকে সামনে রেখে, অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে প্রশ্নের উত্তর দিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ। তাওহীদ ও শিরক, তাগুত ও মানবরচিত আইন, খেলাফত আলা মিনহাজিন নবুওয়াহ’র মাধ্যমে; আল্লাহর যমিনে আল্লাহর আইন ও বিধান প্রতিষ্ঠা, কিতাল ও জিহাদ ফি সাবিলিল্লাহ এবং এতদসংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর প্রদানকেই আমরা আপাতত অগ্রাধিকার দিব ইনশাআল্লাহ, যেগুলোর উত্তর সাধারণত অন্য দারুল ইফতাগুলো থেকে সহজে পাওয়া যায় না।

            ০৪. প্রশ্নকারী ভাইদের প্রতি বিনীত অনুরোধ, আপনারা এ ধরনের প্রশ্নগুলোই আমাদের কাছে পেশ করুন। এর বাইরে যে প্রশ্নগুলোর উত্তর নিকটবর্তী নির্ভরযোগ্য যে কোনো মুফতি সাহেব থেকে কিংবা দারুল ইফতা থেকে জেনে নেয়া সম্ভব, ওগুলো সেখান থেকেই জেনে নিন।

            ০৫. ইতিমধ্যে তালাকের প্রচুর প্রশ্ন আমাদের কাছে এসেছে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে বাস্তব ঘটনার তাহকীক ছাড়া তালাকের নির্ভুল ফাতওয়া দেয়া সম্ভব নয়। তাছাড়া পরিবেশ পরিস্থিতি ও শব্দের সামান্য ব্যবধানে তালাকের বিধানে অনেক বড় ব্যবধান হয়ে যায়। এবিষয়গুলোর যথাযথ তাহকীকও অনলাইনে সম্ভব নয়। এজন্য তালাক সংক্রান্ত কোনও ধরনের প্রশ্নই না পাঠানোর অনুরোধ রইল।

            ০৬. আশা করি, আমাদের সকল পাঠকই নিয়মিত ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করেন এবং সবগুলো ফাতওয়াই পড়েন। বিশেষ করে আপনার প্রশ্নের উত্তরের জন্য প্রশ্ন করার ১০দিন পর থেকে ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করুন।

            ০৭. কিছু প্রশ্ন থাকে, যেগুলোর উত্তর ব্যাপকভাবে সকল পাঠকের জন্য সাইটে প্রকাশ করা সঙ্গত নয়; অথচ প্রশ্নকারীর জন্য উত্তরটি জানা জরুরি। এজাতীয় উত্তরগুলো আমরা প্রশ্নকারীকে মেইল করার চেষ্টা করি। সুতরাং আপনার প্রশ্নটি যদি এই প্রকৃতির হয় এবং আপনি মেইল আইডি না দেন, সে ক্ষেত্রেও আপনার উত্তরটি আমরা আপনাকে পৌঁছাতে পারব না।

            ০৮. আপনি যদি প্রশ্ন করার তিন মাসের মধ্যে উত্তর না পান, তাহলে ধরে নিবেন, আপনার প্রশ্নটি অগ্রাধিকারের তালিকায় স্থান পায়নি। সেটার উত্তর আমরা কখনো সুযোগ হলে দিতেও পারি, নাও দিতে পারি।


            • বাংলাদেশের জিহাদ সমর্থক ভাইদের জন্য অনলাইন দাওয়াতের কিছু নির্দেশনাবাংলাদেশের জিহাদ সমর্থক ভাইদের জন্য অনলাইন দাওয়াতের কিছু নির্দেশনা

              আপনার প্রশ্ন পাঠিয়ে দিন আমাদের নিকট

              প্রশ্ন করার আগে পড়ুন!
              ০১. প্রিয় পাঠক! অল্প সময়ের মধ্যে fatwaa.org সাইটের প্রতি আপনাদের আস্থা ও ভালোবাসার যে পরিচয় আমরা পেয়েছি তার জন্য আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার শোকর আদায়ের পাশাপাশি আপনাদেরকেও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করছি। একই সঙ্গে অত্যন্ত দুঃখ ও বিনয়ের সহিত স্বীকার করছি, আপনাদের প্রশ্নগুলোর উত্তর আমরা যথাসময় দিতে পারছি না। আশা করি বিষয়টি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

              ০২. দুঃখজনক বাস্তবতা হল, আমাদের সামর্থ্য সীমিত। এমন অনেক প্রতিবন্ধকতার মোকাবেলা আমাদের করতে হয়, যা হয়তো আর দশটি দারুল ইফতার ক্ষেত্রে অনুপস্থিত। ফলে ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দেয়া এই মুহূর্তে আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। সীমাবদ্ধতাগুলো ধীরে ধীরে কাটিয়ে উঠার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সকলের কাছে দোয়া চাই, আল্লাহ তাআলা যেন আমাদেরকে সেই তাওফীক দান করেন।

              ০৩. আপাতত আমরা সময়ের প্রয়োজনকে সামনে রেখে, অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে প্রশ্নের উত্তর দিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ। তাওহীদ ও শিরক, তাগুত ও মানবরচিত আইন, খেলাফত আলা মিনহাজিন নবুওয়াহ’র মাধ্যমে; আল্লাহর যমিনে আল্লাহর আইন ও বিধান প্রতিষ্ঠা, কিতাল ও জিহাদ ফি সাবিলিল্লাহ এবং এতদসংশ্লিষ্ট প্রশ্নগুলোর উত্তর প্রদানকেই আমরা আপাতত অগ্রাধিকার দিব ইনশাআল্লাহ, যেগুলোর উত্তর সাধারণত অন্য দারুল ইফতাগুলো থেকে সহজে পাওয়া যায় না।

              ০৪. প্রশ্নকারী ভাইদের প্রতি বিনীত অনুরোধ, আপনারা এ ধরনের প্রশ্নগুলোই আমাদের কাছে পেশ করুন। এর বাইরে যে প্রশ্নগুলোর উত্তর নিকটবর্তী নির্ভরযোগ্য যে কোনো মুফতি সাহেব থেকে কিংবা দারুল ইফতা থেকে জেনে নেয়া সম্ভব, ওগুলো সেখান থেকেই জেনে নিন।

              ০৫. ইতিমধ্যে তালাকের প্রচুর প্রশ্ন আমাদের কাছে এসেছে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে বাস্তব ঘটনার তাহকীক ছাড়া তালাকের নির্ভুল ফাতওয়া দেয়া সম্ভব নয়। তাছাড়া পরিবেশ পরিস্থিতি ও শব্দের সামান্য ব্যবধানে তালাকের বিধানে অনেক বড় ব্যবধান হয়ে যায়। এবিষয়গুলোর যথাযথ তাহকীকও অনলাইনে সম্ভব নয়। এজন্য তালাক সংক্রান্ত কোনও ধরনের প্রশ্নই না পাঠানোর অনুরোধ রইল।

              ০৬. আশা করি, আমাদের সকল পাঠকই নিয়মিত ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করেন এবং সবগুলো ফাতওয়াই পড়েন। বিশেষ করে আপনার প্রশ্নের উত্তরের জন্য প্রশ্ন করার ১০দিন পর থেকে ফাতওয়া পেজ অনুসরণ করুন।

              ০৭. কিছু প্রশ্ন থাকে, যেগুলোর উত্তর ব্যাপকভাবে সকল পাঠকের জন্য সাইটে প্রকাশ করা সঙ্গত নয়; অথচ প্রশ্নকারীর জন্য উত্তরটি জানা জরুরি। এজাতীয় উত্তরগুলো আমরা প্রশ্নকারীকে মেইল করার চেষ্টা করি। সুতরাং আপনার প্রশ্নটি যদি এই প্রকৃতির হয় এবং আপনি মেইল আইডি না দেন, সে ক্ষেত্রেও আপনার উত্তরটি আমরা আপনাকে পৌঁছাতে পারব না।

              ০৮. আপনি যদি প্রশ্ন করার তিন মাসের মধ্যে উত্তর না পান, তাহলে ধরে নিবেন, আপনার প্রশ্নটি অগ্রাধিকারের তালিকায় স্থান পায়নি। সেটার উত্তর আমরা কখনো সুযোগ হলে দিতেও পারি, নাও দিতে পারি।