ফাতওয়া  নং  ০৪

নাজায়েয কাজে সাহায্য করা এবং চুক্তির মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগে চাকরি ছাড়ার বিধান

নাজায়েয কাজে সাহায্য করা এবং চুক্তির মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগে চাকরি ছাড়ার বিধান

নাজায়েয কাজে সাহায্য করা এবং চুক্তির মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগে চাকরি ছাড়ার বিধান

প্রশ্ন:
শায়খ, আমি একটি বিদেশি abcসফটওয়্যার কোম্পানিতে চাকুরিরত। যার মালিক একজন কাফের। abcকোম্পানি বিদেশি (মূলত নেদারল্যন্ড)। বিভিন্ন ছোট/বড় কোম্পানির জন্য সফটওয়্যার তৈরি করে থাকে (outsourcing)। আমি বর্তমানে abcকোম্পানির হয়ে নেদারল্যান্ডের একটি xyz কোম্পানির জন্য সফটওয়্যার বানাচ্ছি। xyz কোম্পানি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের (ইন্সুরেন্স, ফ্যাক্টরি, হাসপাতাল, হোটেল, বাসাবাড়ি, অফিস) ঝুঁকি সনাক্তকরণ এবং মূল্যায়ন করে থাকে এবং ঝুঁকি প্রতিরোধের বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করে থাকে। সাধারণত ঝুঁকি বলতে আগুন, চোর, পানি এবং বিদ্যুতের ক্ষয়ক্ষতি হিসাব করা হয়। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে xyz কোম্পানির বেশির ভাগ খদ্দের হচ্ছে, বীমা প্রতিষ্ঠান। বীমা প্রতিষ্ঠানগুলো (insurance companies) xyz কোম্পানির দেওয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করেই বীমা খরচ (insurance cost) হিসাব/নির্ধারণ করে থাকে।

abcকোম্পানিতে ঢুকার সময় তাদের সাথে আমার লিখিত চুক্তি হয় যে, আমি ন্যূনতম ছয় মাস তাদের হয়ে কাজ করব। এই সময়ের ভিতরে আমি চাকরি ছাড়তে পারব না। আর যদি ছয় মাসের পরে চাকরি ছেড়ে দিতে চাই, তবে দুই মাস বাকি থাকতেই তাদেরকে জানাতে হবে।

শায়খ, আপনার কাছে আমার দুটি প্রশ্ন:
১। আমার চাকরি কি হালাল হবে? যেহেতু আমি xyz কোম্পানির জন্য যেই সফটওয়্যার বানাচ্ছি, সেটা ব্যাবহার করে তারা বীমা প্রতিষ্ঠানের সাথে ব্যবসা করে।
২। চাকরির মেয়াদ শেষ না করেই কি আমি হিজরত করতে পারব? নাকি আমাকে abcকোম্পানির সাথে কৃত চুক্তি পূর্ণ করে তবেই হিজরত করতে হবে?

নিবেদক
আব্দুর রহমান
সিলেট

 

بسم الله الرحمن الرحيم
حامدا ومسلما ومصليا

প্রথম প্রশ্নের উত্তর:
আপনার প্রথম প্রশ্নের উত্তর বোঝার জন্য দুটি বিষয় লক্ষণীয়:

এক. আপনার মালিক কাফের। একজন মুমিনের জন্য কোনো কাফেরের কাজ করার ক্ষেত্রে দুটি শর্ত রয়েছে। শর্ত দুটি পাওয়া গেলে কাজ করা জায়েয এবং পারিশ্রমিকও হালাল। এভাবে হযরত আলী রা. এক ইহুদির কাজ করেছেন। শর্ত দুটি নিম্নরূপ:
১. কাজটি সত্ত্বাগতভাবে জায়েয হতে হবে; নাজায়েয হতে পারবে না। যেমন মুমিনের জন্য কাউকে মদ সরবরাহ করা নাজায়েয। সুতরাং কোনো কাফেরের অধীনেও মুমিনের জন্য এই কাজ করা জায়েয নয়।
২. কাজটি একজন ঈমানদারের ইজ্জত সম্মান পরিপন্থী না হতে হবে। যেমন কোনো কাফেরের খাদেম বা সেবক হয়ে কাজ করা মুমিনের জন্য নাজায়েয। কারণ এই কাজ একজন মুমিনের জন্য অসম্মানজনক।
আশা করি এদুটি শর্ত আপনার চাকরিতে বিদ্যমান এবং এগুলো খেয়াল রেখেই কাজটি গ্রহণ করেছেন।

দুই. দ্বিতীয় যে বিষয়টি লক্ষণীয় তা হল, নাজায়েয কাজে সহযোগিতা হয় কি না? আপনার সংশয়ের কারণ সম্ভবত এটিই, যেমনটি প্রশ্ন থেকে বোঝা যায়। তো এবিষয়ে সংক্ষিপ্ত কথা হল, আপনার উক্ত কাজটি সেই স্তরের সহযোগিতার অন্তর্ভুক্ত নয়, যা নাজায়েয।
একটু ‍বিশ্লেষণ করলে বলা যায়, আপনি মূলত সফটওয়্যার তৈরি করছেন abcকোম্পানির হয়ে। তাদের সরবরাহ করার পর সেই সফটওয়্যার ব্যবহার করে xyz কোম্পানি ঝুঁকি নির্ণয় করে। ঝুঁকি নির্ণয় করা কোনো নাজায়েয কাজ নয়। সুতরাং আপনার সফটওয়্যার নাজায়েয কাজে ব্যবহৃত হয়েছে বলার সুযোগ নেই। এরপর তারা ঝুঁকি নির্ণয় করে পরামর্শ প্রদান করে বীমা কোম্পানিকে। এটাও সত্ত্বাগতভাবে কোনো নাজায়েয কাজ নয়; যদি তা সুপরামর্শ হয়। এরপর বীমা কোম্পানি নাজায়েয পন্থায় বীমা ব্যবসা করে। অথচ ঝুঁকি নির্ণয়ের পর জায়েয পন্থায়ও তারা ব্যবসা করতে পারত। সুতরাং এটা তাদের অন্যায়। এটার সঙ্গে আপনার একটি বৈধ কাজের (ঝুঁকি নির্ণয়ক সফটওয়্যার তৈরির) যেই সম্পর্ক, এই সম্পর্কের ভিত্তিতে ফুকাহায়ে কেরাম এই কাজকে নাজায়েয বলেন না এবং এটাকে অন্যায়ের সহযোগিতা গণ্য করেন না। তবে হ্যাঁ, অন্যায় কাজের সঙ্গে এতটুকু সম্পর্কের কথা আগে থেকে জানা থাকলে তা থেকেও বিরত থাকা উত্তম।

খোলাসা কথা হল, কাফেরের কাজ করার জন্য যে দুটি শর্ত রয়েছে, তা যদি পাওয়া যায়, তাহলে আপনার উক্ত কাজ নাজায়েয নয় এবং আপনার উপার্জনও হারাম নয়।
তবে সর্বাবস্থায় একজন মুমিনের জন্য কাফের অপেক্ষা কোনো মুমিনের অধীনে কাজ করাই উত্তম ও নিরাপদ।

দ্বিতীয় প্রশ্নের উত্তর:
আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেন-

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا أَوْفُوا بِالْعُقُودِ

‘হে ঈমানদারেরা! তোমরা চুক্তিসমূহ পূর্ণ কর। সূরা মায়েদা (৫): ১’

অন্য আয়াতে এসেছে-

وَأَوْفُوا بِالْعَهْدِ إِنَّ الْعَهْدَ كَانَ مَسْئُولًا

‘তোমরা অঙ্গীকার পূর্ণ কর। নিশ্চয় অঙ্গীকার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হবে। সূরা বনি ইসরাঈল (১৭) : ৩৪’

রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন-

( من غش فليس مني )

‘যে ধোঁকা দেয় সে আমাদের অন্তর্ভুক্ত নয়।’ (সহী ইবনে হিব্বান : ৫৬৭; ৪৯০৫; ৫৫৫৯)’

এজাতীয় আরো অনেক হাদীস ও আয়াতের ভিত্তিতে উলামায়ে কেরাম বলেছেন, কাফেরের সঙ্গেও যদি কোনো চুক্তি করা হয়, তবুও তা পূর্ণ করা জরুরি। তবে হ্যাঁ, কাফের যদি প্রথমে চুক্তির কোনো শর্ত বা অংশ ভঙ্গ করে, তবে তার সঙ্গে কৃত চুক্তি ভঙ্গ করা যায়। সুতরাং তার পক্ষ থেকে চুক্তি ভঙ্গের কোনো কারণ না পাওয়া গেলে, আপনার জন্য তা ভঙ্গ করার সুযোগ নেই। তাই চাকরি ছাড়তে হলে আপনাকে চার মাসের মাথায় বা এখনই কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দিয়ে ছয় মাস পূর্ণ করে যেতে হবে।

فقط والله أعلمب الصواب،وعلمه أتمو أحكم

উল্লেখ্য, দু’একজন মুফতী সাহেবের সঙ্গে মুযাকারা করা ব্যতীত এজাতীয় প্রশ্নের উত্তর দেয়া সমীচিন মনে করি না। কিন্তু এই মুহূর্তে মুযাকারা করার মতো সুযোগ আমাদের নেই। তাই নির্ভরযোগ্য কোনো আলেমের সমর্থন নিয়ে আমল করলে ভালো হবে ইনশাআল্লাহ।
মুরাজাআহ’র সুবিধার্থে নিম্নে কিছু হাওয়ালা পেশ করা হল।

[ 2473 ] حدثنا هناد حدثنا يونس بن بكير عن محمد بن إسحاق حدثنا يزيد بن زياد عن محمد بن كعب القرظي حدثني من سمع علي بن أبي طالب يقول خرجت في يوم شات من بيت رسول الله صلى الله عليه وسلم وقد أخذت إهابا معطوبا فحولت وسطه فأدخلته عنقي وشددت وسطي فحزمته بخوص النخل وإني لشديد الجوع ولو كان في بيت رسول الله صلى الله عليه وسلم طعام لطعمت منه فخرجت ألتمس شيئا فمررت بيهودي في مال له وهو يسقي ببكرة له فأطلعت عليه من ثلمة في الحائط فقال مالك يا أعرابي هل لك في كل دلو بتمرة قلت نعم فافتح الباب حتى أدخل ففتح فدخلت فأعطاني دلوه فكلما نزعت دلوا أعطاني تمرة حتى إذا امتلأت كفي أرسلت دلوه وقلت حسبي فأكلتها ثم جرعت من الماء فشربت ثم جئت المسجد فوجدت رسول الله صلى الله عليه وسلم فيه قال أبو عيسى هذا حديث حسن غريب

رقم السؤال: 513

القسم : الفقه وأصوله

تاريخ النشر:

المجيب: اللجنة الشرعية في المنبر

السؤال :

السلام عليكم و رحمة الله و بركاته.. شيخنا ..الأخوة الكرام في المنبر0بارك الله فيكم و نفع بكم0.سؤالي هو.. ما حكم العمل في شركات الاتصالات للهاتف المحمول في بلاد محتلة مثل العراق و أفغانستان؟

السائل: رب اغفرلى

* * *

الجواب:

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته..أخي السائل:

إذا غلب على ظنك أن مثل هذه الشركات يستخدمها الصليبيون والمرتدون في التواصل بينهم وبين جيوشهم وفي الحرب ضد المجاهدين بشكل مباشر من تجسس عليهم وتتبع لهم ولأخبارهم واتصالاتهم وغير ذلك، وهو الشيء الذي نسمع به من إخواننا المجاهدين – خاصة في أفغانستان- لذلك يقومون بين الفينة والأخرى بتفجير أبراج الاتصالات لكونها تستخدم في الحرب عليهم ، وما دام الأمر كذلك فلا يجوز لك العمل في مثل هذه الشركات في تلك المواطن ، لأن ذلك يدخل في مولاة الكفار ومظاهرتهم على المؤمنين ، هذا ما لم يثبت عندك خلاف ذلك وأن أغلب استخدامها مدني فقط ، فيرجع الحكم إلى الإباحة … والله أعلم.

إجابة عضو اللجنة الشرعية :

حكم العمل عند النصارى ؟

رقم السؤال: 907

القسم : الفقه وأصوله

تاريخ النشر: 8 /12/2009

المجيب: اللجنة الشرعية في المنبر

السؤال :

السلام عليكم ورحمة الله وبركاته..

ما حكم العمل عند شخص نصراني في مطعم وللعلم المطعم لا يبيع أي من المحرمات التي يحرمها الإسلام كلحم الخنزير و الخمر وغيرها ، فقط يبيع المشروبات و المنبهات و الأكل الخفيف الحلال أكله ؟

السائل: نسيم

* * *

الجواب:

أخي السائل وفقك الله..

إن كان عملك في المطعم كما ذكرت ليس فيه ما يحرم كتقديم طعام محرم أو شراب محرم أو إعانة على محرم وليس فيه أي إذلال لك فإن عملك يعد مباحا في هذه الحالة لأن العلماء أباحوا العمل عند الكافر بشرطين :

– أن يكون ذلك فيما يجوز شرعا.

– ألا يكون في ذلك إذلال للمسلم .

قال ابن قدامة في المغني:” ولا تجوز إجارة المسلم للذمي لخدمته. نص عليه أحمد ، وعلل ابن قدامة عدم الجواز بقوله: ولنا أنه عقد يتضمن حبس المسلم عند الكافر وإذلاله له واستخدامه .. فأما إن أجر نفسه منه في عمل معين في الذمة كخياطة ثوب وقصارته ، جاز بغير خلاف فعله ، لأن علياً رضي الله عنه أجر نفسه من يهودي يستقي له كل دلو بتمرة ، وأخبر النبي صلى الله عليه وسلم بذلك فلم ينكره ، وكذلك الأنصاري ، ولأنه عقد معاوضة لا يتضمن إذلال المسلم ولا استخدامه ، وإن أجر نفسه منه لعمل غير الخدمة مدة طويلة جاز أيضاً. “أ.هـ.

جاء في كشاف القناع: “وكذا تجوز إجارة المسلم الذمي لعمل -غير خدمة- مدة معلومة، بأن يستأجر ليستقي أو يعصر له أياما معلومة، لأنه عقد معاوضة لا يتضمن إذلال المسلم ولا استخدامه أشبه مبايعته”أ.هـ.

وإن كان الأولى على كل حال والأسلم لك أن تعمل عند المسلمين وتتجنب العمل عند الكفار… والله أعلم .

إجابة عضو اللجنة الشرعية :

الشيخ أبو أسامة الشامي

حكم العمل عند يهود والتحاكم إلى محاكمهم ؟

رقم السؤال: 665

القسم : الفقه وأصوله

تاريخ النشر: 9 /12/2009

المجيب: اللجنة الشرعية في المنبر

السؤال :

السلام عليكم ورحمة الله وبركاته..

ما حكم العمل عند يهود للتكسب, وإذا كان الضابط هو الإعانة فما هي حدودها؟ وهل يجوز التحاكم إلى محاكمهم لرد حق, أو دفع مظلمة, إذا عدمت السبل الأخرى؟

السائل:أبو عبد الرحمن

* * *

الجواب:

وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته..

– ذهب جمهور العلماء إلى إباحة عمل المسلم كأجير عند الكافر بضابطين :

الأول : أن يكون هذا العمل فيما يباح شرعا .

الثاني : ألا يكون فيه إذلال للمسلم أو إهانة له ، لذا يحرم على المسلم أن يعمل كخادم لدى الكافر لما في ذلك من الإذلال له والإسلام يعلو ولا يعلى عليه .

هذا من حيث الأصل ، ولكن لما كان اليهود محتلين لبلاد المسلمين وكان الواجب هو السعي لجهادهم وطردهم لا العمل عندهم مما يساعد في توطينهم في بلاد المسلمين فإن العمل عندهم هو نوع من الركون إليهم ، بل من الموالاة إذا كان عمله فيما يعينهم على احتلال بلاد المسلمين بشكل مباشر كبناء المساكن والجدار العازل ، وبذلك يفقد العمل عند اليهود احد شرطي الإباحة وهو ألا يكون فيما يحرم إذا لا شك أن موالاة الكفار محرمة – إن لم تصل بصاحبها إلى الكفر – هذا مع أن الغالب أن العمل عند اليهود فاقد للشرط الثاني للإباحة أيضا فالغالب أن من يعمل عندهم يتعرض لنوع من الإذلال والإهانة.

فالخلاصة أن العمل عند اليهود المحتلين لبلاد المسلمين محرم لا يجوز للمسلم الدخول فيه ، هذا ما لم يقع المسلم في مخمصة وضرورة وخشي على نفسه الهلاك ولم يتيسر له أي طريق للتكسب إلا بالعمل عند اليهود فعندها يجوز له العمل مع تحري الالتزام بالشروط التي ذكرها العلماء فالضرورات تبيح المحظورات، ولكن عليه ألا يتوسع في ذلك إذ أن الضرورة تقدر بقدرها ومتى وجد عملا عند غيرهم وجب عليه الانتقال إليه .

– أما حكم التحاكم إلى محاكمهم فهو عين حكم التحاكم لمحاكم الطواغيت في بلادنا وقد سبق لشيخنا أبي محمد المقدسي أن أجاب عن مثل هذا السؤال على هذا المنتدى فارجع إليه …والله أعلم.

إجابة عضو اللجنة الشرعية :

الشيخ أبو أسامة الشامي

حكم سرقة أموال مصرف أو بنك للكفار بطريق الغش والغدر ؟

رقم السؤال: 1089

القسم : الفقه وأصوله

تاريخ النشر: 24 /12/2009

المجيب: الشيخ أبو محمد المقدسي

السؤال :

السلام عليكم..

ما هو الحكم في سرقة مصرف، على أساس أنه مموّل ومضمون من الجهات والحكومات الكافرة؟ بأن يأخذ الشخص قرضاً من مصرف ويقوم بسداده بالكامل لنيل ثقتهم. ليأخذ بعدها قرضاً أكبر من الأول وبعدها يترك البلد من دون ضرّ أحد؟ أفيدوني إخوتي في الله أرجوكم بسرعة. والسلام عليكم ورحمة الله وبركاته.

السائل:annoor

* * *

الجواب:

الحمد لله والصلاة والسلام على رسول الله وبعد:

أخانا السائل ..

يقول الله تعالى : (يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا أَوْفُوا بِالْعُقُودِ ).

ويقول سبحانه : (إِنَّ اللَّهَ يَأْمُرُكُمْ أَنْ تُؤَدُّوا الْأَمَانَاتِ إِلَى أَهْلِهَا).

ويقول النبي صلى الله عليه وسلم : ( من غش فليس مني ) وتأمل لهذا اللفظ وهو في صحيح مسلم فهو ليس كالرواية الأخرى ( من غشنا ) بل هو أعم فيدخل فيه النهي عن غش الكفار أيضا ومثل ذلك الآيات أعلاه فهي عامة ..

وعليه فلا يحل خيانة العقود والأمانات والغش حتى مع الكفار لأن النصوص التي تنهى عن ذلك عامة لا يجوز تقييدها بغير دليل ؛ فلا يجوز أن تقيد بالهوى والاستحسان وابتغاء عَرَضَ الْحَيَاةِ الدُّنْيَا فعند الله مغانم كثيرة .

والنبي صلى الله عليه وسلم كان في مكة يلقبه الكفار قبل بعثته بالصادق الأمين ولم يخن أمانة لكافر ولا خفر عهدا ولا غش في عقد قط وحاشاه ؛ وهكذا ينبغي أن يكون أتباعه وأنصار دينه إن أرادوا أن يفلحوا كما فلح وينجحوا كما نجح ..

قال تعالى : (قُلْ إِنْ كُنْتُمْ تُحِبُّونَ اللَّهَ فَاتَّبِعُونِي يُحْبِبْكُمُ اللَّهُ وَيَغْفِرْ لَكُمْ ذُنُوبَكُمْ وَاللَّهُ غَفُورٌ رَحِيمٌ) وفي السيرة أن المغيرة بن شعبة صاحب اثنا عشر رجلاً في الجاهلية ، وفدوا على ملك الحبشة فأهداهم وأتحفهم هدايا وأكرمهم ولم يهد للمغيرة ؛ فوجد المغيرة في نفسه من ذلك ، وفي طريق عودتهم في السفينة عصب رأسه وادعى أنه مصدوع وقال لهم أنا ساقيكم اليوم ، فسقاهم الخمر صرفا حتى سكروا فقتلهم وأخذ أموالهم وذهب إلى النبي صلى الله عليه وسلم في المدينة مسلماً، فقال النبي صلى الله عليه وسلم:

(أما الإسلام فأقبله منك، وأما المال فلست منه في شيء، إنه أخذ غدراً) وأبى أن يأخذ المال..

وهذه القصة يستأنس بها فيما نحن فيه ، ويرجح صحتها ما ورد في صحيح البخاري في كتاب الشروط في قصة الحديبية وخبر محاورة عروة بن مسعود للنبي صلى الله عليه وسلم وعروة عم المغيرة بن شعبة ففيها أنه قال للمغيرة لما رآه : (أي غُدر! ما زلت أسعى في غدرتك ) يعني أنه لا زال يسدد ويجتهد في إرضاء قبائل الرجال الذين قتلهم المغيرة ويسدد دياتهم كونه عمه ..

فتأمل كيف تنزه رسول الله صلى الله عليه وسلم عن المال الذي أخذ بهذه الطريقة مع أن المغيرة أخذه في جاهليته قبل إسلامه ، ولعل هذا السبب الذي لم تذكر لنا الروايات أنه أمره برده ؛ ولكنه لم يقبله منه ..

فمن باب أولى أن لا يقبل صلى الله عليه وسلم ولا يرضى لمسلم يتبع دينه مثل هذا العمل ..

فنصيحتي للأخ السائل وغيره من المسلمين أن يتركوا هذه الطريق التي جرّت على الدعوة والإسلام والمسلمين من المفاسد مالا يحصى ؛ وأن يتعاملوا مع كافة الناس بأخلاق نبيهم صلى الله عليه وسلم ، الذي كان لا يغش ولا يخون ولا يغدر حتى لو كانت أموال الكفار الحربيين قد أحلها الله له ولأمته ؛ ولكن يكون ذلك بالطرق المشروعة التي هي من جنس الغنيمة والفيء وما يشبهه ؛ أما الغدر والخيانة والغش فليس من دين المسلمين ولا سبيلهم.

(وَمَنْ يُشَاقِقِ الرَّسُولَ مِنْ بَعْدِ مَا تَبَيَّنَ لَهُ الْهُدَى وَيَتَّبِعْ غَيْرَ سَبِيلِ الْمُؤْمِنِينَ نُوَلِّهِ مَا تَوَلَّى وَنُصْلِهِ جَهَنَّمَ وَسَاءَتْ مَصِيرًا).

إجابة الشيخ: أبو محمد المقدسي

আরো দেখুন: জাওয়াহিরুল ফিকহ, মুফতী শফী রহ. খ. ৭, পৃ. ৫০৮-৫১৪

 

فقط، والله تعالى أعلم بالصواب

আবু মুহাম্মাদ আব্দুল্লাহ আলমাহদী(হাফিজাহুল্লাহ)
২৩/০১/২০১৮ইং

কিতাব ও রিসালাহ

  • আন্তঃধর্মীয় সংলাপ সম্প্রীতির নামে ইসলাম ধ্বংসের ষড়যন্ত্রআন্তঃধর্মীয় সংলাপ সম্প্রীতির নামে ইসলাম ধ্বংসের ষড়যন্ত্র

    আমাদের কথা

    Fatwaa.org একটি শিক্ষা ও গবেষণামূলক ওয়েবসাইট, যার উদ্দেশ্য কুরআন-সুন্নাহর আলোকে, সময়ের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন বিষয়ে ইসলামের সঠিক শিক্ষা তুলে ধরা। ইসলামের এ ক্রান্তিলগ্নে ইফরাত-তাফরীত তথা প্রান্তিকতামুক্ত পূর্ণাঙ্গ দ্বীন, উম্মাহর সামনে তুলে ধরা এবং কুরআন-সুন্নাহর আলোকে ইসলাম সম্পর্কে বিভিন্ন সংশয় ও প্রশ্নের উত্তর দেয়া। বিশেষভাবে এমন বিষয়গুলো এখানে প্রাধান্য দেয়া হয়, যেগুলোর ক্ষেত্রে দ্বীনের প্রকৃত শিক্ষা আজ চেপে রাখা হয়েছে! দ্বীনের যে মাজলুম বিষয়গুলো আজ তাহরীফ ও বিকৃতির শিকার! প্রতিটি ক্ষেত্রে কুরআন-সুন্নাহ ও সালফে-সালেহিনের অবস্থানের আলোকে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরতে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

    আমরা বিশ্বাস করি, শরীয়তের প্রধান দলীল ও উৎসমূল কোরআন, সুন্নাহ, ইজমা, কিয়াস। Fatwaa.org এর আলোচনাগুলোতে ফিকহের ইজতেহাদী বিষয়ে আমভাবে ফিকহে হানাফির অনুসরণ করা হয়। তবে ক্ষেত্রবিশেষে শরয়ী দলীলের আলোকে অন্য কোনো মত অগ্রগণ্য প্রমাণিত হলে, ফিকহ-ফতোয়ার উসূলের আলোকে ভিন্নমতও গ্রহণ করা হয়।

    সাইটটির সঙ্গে যুক্ত আছেন, আলিম ও তালিবুল ইলমের সমন্বয়ে গঠিত, আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামায়াহ’র অনুসারী একটি তায়েফা, যাঁরা ইলমে দ্বীন অন্বেষণ ও দ্বীনি দাওয়াহ’র কাজে নিয়োজিত। এ সাইটে আমরা ঐ লেখাগুলোই প্রকাশ করি, যা উম্মাহর জন্য উপকারী এবং কুরআন সুন্নাহর মানদণ্ডে উত্তীর্ণ। যাঁদের লেখা এখানে প্রকাশিত হয়, তাঁদের ভিন্ন কোনো লেখার দায়ভার আমাদের উপর বর্তাবে না। আমরা সর্বদা চেষ্টা করি, কুরআন সুন্নাহর সঠিক দলীলের উপর ভিত্তি করে লেখার। তবে নিজেদের অজান্তে কোনো ভুল হয়ে গেলে তা শুধরে নিতে আমরা সদা প্রস্তুত। তাই গঠনমূলক ও দলীলভিত্তিক যে কোনো সমালোচনা ও পর্যালোচনাকে আমরা স্বাগত জানাই।
    আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা – ask@fatwaa.org


  • জিহাদ কখন ফরজে আইন হয়?জিহাদ কখন ফরজে আইন হয়?

    আমাদের কথা

    Fatwaa.org একটি শিক্ষা ও গবেষণামূলক ওয়েবসাইট, যার উদ্দেশ্য কুরআন-সুন্নাহর আলোকে, সময়ের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন বিষয়ে ইসলামের সঠিক শিক্ষা তুলে ধরা। ইসলামের এ ক্রান্তিলগ্নে ইফরাত-তাফরীত তথা প্রান্তিকতামুক্ত পূর্ণাঙ্গ দ্বীন, উম্মাহর সামনে তুলে ধরা এবং কুরআন-সুন্নাহর আলোকে ইসলাম সম্পর্কে বিভিন্ন সংশয় ও প্রশ্নের উত্তর দেয়া। বিশেষভাবে এমন বিষয়গুলো এখানে প্রাধান্য দেয়া হয়, যেগুলোর ক্ষেত্রে দ্বীনের প্রকৃত শিক্ষা আজ চেপে রাখা হয়েছে! দ্বীনের যে মাজলুম বিষয়গুলো আজ তাহরীফ ও বিকৃতির শিকার! প্রতিটি ক্ষেত্রে কুরআন-সুন্নাহ ও সালফে-সালেহিনের অবস্থানের আলোকে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরতে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

    আমরা বিশ্বাস করি, শরীয়তের প্রধান দলীল ও উৎসমূল কোরআন, সুন্নাহ, ইজমা, কিয়াস। Fatwaa.org এর আলোচনাগুলোতে ফিকহের ইজতেহাদী বিষয়ে আমভাবে ফিকহে হানাফির অনুসরণ করা হয়। তবে ক্ষেত্রবিশেষে শরয়ী দলীলের আলোকে অন্য কোনো মত অগ্রগণ্য প্রমাণিত হলে, ফিকহ-ফতোয়ার উসূলের আলোকে ভিন্নমতও গ্রহণ করা হয়।

    সাইটটির সঙ্গে যুক্ত আছেন, আলিম ও তালিবুল ইলমের সমন্বয়ে গঠিত, আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামায়াহ’র অনুসারী একটি তায়েফা, যাঁরা ইলমে দ্বীন অন্বেষণ ও দ্বীনি দাওয়াহ’র কাজে নিয়োজিত। এ সাইটে আমরা ঐ লেখাগুলোই প্রকাশ করি, যা উম্মাহর জন্য উপকারী এবং কুরআন সুন্নাহর মানদণ্ডে উত্তীর্ণ। যাঁদের লেখা এখানে প্রকাশিত হয়, তাঁদের ভিন্ন কোনো লেখার দায়ভার আমাদের উপর বর্তাবে না। আমরা সর্বদা চেষ্টা করি, কুরআন সুন্নাহর সঠিক দলীলের উপর ভিত্তি করে লেখার। তবে নিজেদের অজান্তে কোনো ভুল হয়ে গেলে তা শুধরে নিতে আমরা সদা প্রস্তুত। তাই গঠনমূলক ও দলীলভিত্তিক যে কোনো সমালোচনা ও পর্যালোচনাকে আমরা স্বাগত জানাই।
    আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা – ask@fatwaa.org


  • তাকফিরের ব্যাপারে সীমালংঘন : কারণ ও প্রতিকার fatwaaতাকফিরের ব্যাপারে সীমালংঘন : কারণ ও প্রতিকার

    আমাদের কথা

    Fatwaa.org একটি শিক্ষা ও গবেষণামূলক ওয়েবসাইট, যার উদ্দেশ্য কুরআন-সুন্নাহর আলোকে, সময়ের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন বিষয়ে ইসলামের সঠিক শিক্ষা তুলে ধরা। ইসলামের এ ক্রান্তিলগ্নে ইফরাত-তাফরীত তথা প্রান্তিকতামুক্ত পূর্ণাঙ্গ দ্বীন, উম্মাহর সামনে তুলে ধরা এবং কুরআন-সুন্নাহর আলোকে ইসলাম সম্পর্কে বিভিন্ন সংশয় ও প্রশ্নের উত্তর দেয়া। বিশেষভাবে এমন বিষয়গুলো এখানে প্রাধান্য দেয়া হয়, যেগুলোর ক্ষেত্রে দ্বীনের প্রকৃত শিক্ষা আজ চেপে রাখা হয়েছে! দ্বীনের যে মাজলুম বিষয়গুলো আজ তাহরীফ ও বিকৃতির শিকার! প্রতিটি ক্ষেত্রে কুরআন-সুন্নাহ ও সালফে-সালেহিনের অবস্থানের আলোকে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরতে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

    আমরা বিশ্বাস করি, শরীয়তের প্রধান দলীল ও উৎসমূল কোরআন, সুন্নাহ, ইজমা, কিয়াস। Fatwaa.org এর আলোচনাগুলোতে ফিকহের ইজতেহাদী বিষয়ে আমভাবে ফিকহে হানাফির অনুসরণ করা হয়। তবে ক্ষেত্রবিশেষে শরয়ী দলীলের আলোকে অন্য কোনো মত অগ্রগণ্য প্রমাণিত হলে, ফিকহ-ফতোয়ার উসূলের আলোকে ভিন্নমতও গ্রহণ করা হয়।

    সাইটটির সঙ্গে যুক্ত আছেন, আলিম ও তালিবুল ইলমের সমন্বয়ে গঠিত, আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামায়াহ’র অনুসারী একটি তায়েফা, যাঁরা ইলমে দ্বীন অন্বেষণ ও দ্বীনি দাওয়াহ’র কাজে নিয়োজিত। এ সাইটে আমরা ঐ লেখাগুলোই প্রকাশ করি, যা উম্মাহর জন্য উপকারী এবং কুরআন সুন্নাহর মানদণ্ডে উত্তীর্ণ। যাঁদের লেখা এখানে প্রকাশিত হয়, তাঁদের ভিন্ন কোনো লেখার দায়ভার আমাদের উপর বর্তাবে না। আমরা সর্বদা চেষ্টা করি, কুরআন সুন্নাহর সঠিক দলীলের উপর ভিত্তি করে লেখার। তবে নিজেদের অজান্তে কোনো ভুল হয়ে গেলে তা শুধরে নিতে আমরা সদা প্রস্তুত। তাই গঠনমূলক ও দলীলভিত্তিক যে কোনো সমালোচনা ও পর্যালোচনাকে আমরা স্বাগত জানাই।
    আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা – ask@fatwaa.org


  • ইমাম মাহদির আগমন : সংশয় ও বাস্তবতাইমাম মাহদির আগমন : সংশয় ও বাস্তবতা

    আমাদের কথা

    Fatwaa.org একটি শিক্ষা ও গবেষণামূলক ওয়েবসাইট, যার উদ্দেশ্য কুরআন-সুন্নাহর আলোকে, সময়ের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন বিষয়ে ইসলামের সঠিক শিক্ষা তুলে ধরা। ইসলামের এ ক্রান্তিলগ্নে ইফরাত-তাফরীত তথা প্রান্তিকতামুক্ত পূর্ণাঙ্গ দ্বীন, উম্মাহর সামনে তুলে ধরা এবং কুরআন-সুন্নাহর আলোকে ইসলাম সম্পর্কে বিভিন্ন সংশয় ও প্রশ্নের উত্তর দেয়া। বিশেষভাবে এমন বিষয়গুলো এখানে প্রাধান্য দেয়া হয়, যেগুলোর ক্ষেত্রে দ্বীনের প্রকৃত শিক্ষা আজ চেপে রাখা হয়েছে! দ্বীনের যে মাজলুম বিষয়গুলো আজ তাহরীফ ও বিকৃতির শিকার! প্রতিটি ক্ষেত্রে কুরআন-সুন্নাহ ও সালফে-সালেহিনের অবস্থানের আলোকে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরতে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

    আমরা বিশ্বাস করি, শরীয়তের প্রধান দলীল ও উৎসমূল কোরআন, সুন্নাহ, ইজমা, কিয়াস। Fatwaa.org এর আলোচনাগুলোতে ফিকহের ইজতেহাদী বিষয়ে আমভাবে ফিকহে হানাফির অনুসরণ করা হয়। তবে ক্ষেত্রবিশেষে শরয়ী দলীলের আলোকে অন্য কোনো মত অগ্রগণ্য প্রমাণিত হলে, ফিকহ-ফতোয়ার উসূলের আলোকে ভিন্নমতও গ্রহণ করা হয়।

    সাইটটির সঙ্গে যুক্ত আছেন, আলিম ও তালিবুল ইলমের সমন্বয়ে গঠিত, আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামায়াহ’র অনুসারী একটি তায়েফা, যাঁরা ইলমে দ্বীন অন্বেষণ ও দ্বীনি দাওয়াহ’র কাজে নিয়োজিত। এ সাইটে আমরা ঐ লেখাগুলোই প্রকাশ করি, যা উম্মাহর জন্য উপকারী এবং কুরআন সুন্নাহর মানদণ্ডে উত্তীর্ণ। যাঁদের লেখা এখানে প্রকাশিত হয়, তাঁদের ভিন্ন কোনো লেখার দায়ভার আমাদের উপর বর্তাবে না। আমরা সর্বদা চেষ্টা করি, কুরআন সুন্নাহর সঠিক দলীলের উপর ভিত্তি করে লেখার। তবে নিজেদের অজান্তে কোনো ভুল হয়ে গেলে তা শুধরে নিতে আমরা সদা প্রস্তুত। তাই গঠনমূলক ও দলীলভিত্তিক যে কোনো সমালোচনা ও পর্যালোচনাকে আমরা স্বাগত জানাই।
    আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা – ask@fatwaa.org


  • ফাতওয়াপ্রার্থীর আদব-নির্দেশিকাফাতওয়াপ্রার্থীর আদব-নির্দেশিকা

    আমাদের কথা

    Fatwaa.org একটি শিক্ষা ও গবেষণামূলক ওয়েবসাইট, যার উদ্দেশ্য কুরআন-সুন্নাহর আলোকে, সময়ের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন বিষয়ে ইসলামের সঠিক শিক্ষা তুলে ধরা। ইসলামের এ ক্রান্তিলগ্নে ইফরাত-তাফরীত তথা প্রান্তিকতামুক্ত পূর্ণাঙ্গ দ্বীন, উম্মাহর সামনে তুলে ধরা এবং কুরআন-সুন্নাহর আলোকে ইসলাম সম্পর্কে বিভিন্ন সংশয় ও প্রশ্নের উত্তর দেয়া। বিশেষভাবে এমন বিষয়গুলো এখানে প্রাধান্য দেয়া হয়, যেগুলোর ক্ষেত্রে দ্বীনের প্রকৃত শিক্ষা আজ চেপে রাখা হয়েছে! দ্বীনের যে মাজলুম বিষয়গুলো আজ তাহরীফ ও বিকৃতির শিকার! প্রতিটি ক্ষেত্রে কুরআন-সুন্নাহ ও সালফে-সালেহিনের অবস্থানের আলোকে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরতে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

    আমরা বিশ্বাস করি, শরীয়তের প্রধান দলীল ও উৎসমূল কোরআন, সুন্নাহ, ইজমা, কিয়াস। Fatwaa.org এর আলোচনাগুলোতে ফিকহের ইজতেহাদী বিষয়ে আমভাবে ফিকহে হানাফির অনুসরণ করা হয়। তবে ক্ষেত্রবিশেষে শরয়ী দলীলের আলোকে অন্য কোনো মত অগ্রগণ্য প্রমাণিত হলে, ফিকহ-ফতোয়ার উসূলের আলোকে ভিন্নমতও গ্রহণ করা হয়।

    সাইটটির সঙ্গে যুক্ত আছেন, আলিম ও তালিবুল ইলমের সমন্বয়ে গঠিত, আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামায়াহ’র অনুসারী একটি তায়েফা, যাঁরা ইলমে দ্বীন অন্বেষণ ও দ্বীনি দাওয়াহ’র কাজে নিয়োজিত। এ সাইটে আমরা ঐ লেখাগুলোই প্রকাশ করি, যা উম্মাহর জন্য উপকারী এবং কুরআন সুন্নাহর মানদণ্ডে উত্তীর্ণ। যাঁদের লেখা এখানে প্রকাশিত হয়, তাঁদের ভিন্ন কোনো লেখার দায়ভার আমাদের উপর বর্তাবে না। আমরা সর্বদা চেষ্টা করি, কুরআন সুন্নাহর সঠিক দলীলের উপর ভিত্তি করে লেখার। তবে নিজেদের অজান্তে কোনো ভুল হয়ে গেলে তা শুধরে নিতে আমরা সদা প্রস্তুত। তাই গঠনমূলক ও দলীলভিত্তিক যে কোনো সমালোচনা ও পর্যালোচনাকে আমরা স্বাগত জানাই।
    আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা – ask@fatwaa.org


  • বাংলাদেশের জিহাদ সমর্থক ভাইদের জন্য অনলাইন দাওয়াতের কিছু নির্দেশনাবাংলাদেশের জিহাদ সমর্থক ভাইদের জন্য অনলাইন দাওয়াতের কিছু নির্দেশনা

    আমাদের কথা

    Fatwaa.org একটি শিক্ষা ও গবেষণামূলক ওয়েবসাইট, যার উদ্দেশ্য কুরআন-সুন্নাহর আলোকে, সময়ের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন বিষয়ে ইসলামের সঠিক শিক্ষা তুলে ধরা। ইসলামের এ ক্রান্তিলগ্নে ইফরাত-তাফরীত তথা প্রান্তিকতামুক্ত পূর্ণাঙ্গ দ্বীন, উম্মাহর সামনে তুলে ধরা এবং কুরআন-সুন্নাহর আলোকে ইসলাম সম্পর্কে বিভিন্ন সংশয় ও প্রশ্নের উত্তর দেয়া। বিশেষভাবে এমন বিষয়গুলো এখানে প্রাধান্য দেয়া হয়, যেগুলোর ক্ষেত্রে দ্বীনের প্রকৃত শিক্ষা আজ চেপে রাখা হয়েছে! দ্বীনের যে মাজলুম বিষয়গুলো আজ তাহরীফ ও বিকৃতির শিকার! প্রতিটি ক্ষেত্রে কুরআন-সুন্নাহ ও সালফে-সালেহিনের অবস্থানের আলোকে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা তুলে ধরতে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

    আমরা বিশ্বাস করি, শরীয়তের প্রধান দলীল ও উৎসমূল কোরআন, সুন্নাহ, ইজমা, কিয়াস। Fatwaa.org এর আলোচনাগুলোতে ফিকহের ইজতেহাদী বিষয়ে আমভাবে ফিকহে হানাফির অনুসরণ করা হয়। তবে ক্ষেত্রবিশেষে শরয়ী দলীলের আলোকে অন্য কোনো মত অগ্রগণ্য প্রমাণিত হলে, ফিকহ-ফতোয়ার উসূলের আলোকে ভিন্নমতও গ্রহণ করা হয়।

    সাইটটির সঙ্গে যুক্ত আছেন, আলিম ও তালিবুল ইলমের সমন্বয়ে গঠিত, আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামায়াহ’র অনুসারী একটি তায়েফা, যাঁরা ইলমে দ্বীন অন্বেষণ ও দ্বীনি দাওয়াহ’র কাজে নিয়োজিত। এ সাইটে আমরা ঐ লেখাগুলোই প্রকাশ করি, যা উম্মাহর জন্য উপকারী এবং কুরআন সুন্নাহর মানদণ্ডে উত্তীর্ণ। যাঁদের লেখা এখানে প্রকাশিত হয়, তাঁদের ভিন্ন কোনো লেখার দায়ভার আমাদের উপর বর্তাবে না। আমরা সর্বদা চেষ্টা করি, কুরআন সুন্নাহর সঠিক দলীলের উপর ভিত্তি করে লেখার। তবে নিজেদের অজান্তে কোনো ভুল হয়ে গেলে তা শুধরে নিতে আমরা সদা প্রস্তুত। তাই গঠনমূলক ও দলীলভিত্তিক যে কোনো সমালোচনা ও পর্যালোচনাকে আমরা স্বাগত জানাই।
    আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা – ask@fatwaa.org